মধুমিতা যাপন ……

0
198

পিনাকী চক্রবর্তী :

পাখি ঘোষ দস্তিদার সিংহ রায়কে মনে আছে? ‘বোঝেনা সে বোঝেনা’ টেলি সিরিয়ালের মধ্যবিত্ত মিষ্টি চেহারার মেয়েটি। সন্ধ্যায় বাঙালির ড্রয়িং রুমে মেয়েটি অনায়সযাপন করত।

পাখির ভূমিকায় অভিনয় করা মধুমিতা সরকার টেলিসিরিয়ালের প্রথম দিন থেকেই দর্শকদের মন ছুয়েছে। মধুমিতা সরকারের জন্ম হয় ১৯ ৯৪ সালে ২৬ অক্টোবর, কলকাতায়। জীবনের সংঘর্ষের শুরুর দিন গুলোতে মধুমিতা একজন প্রতিশ্রুতিবান উঠতি মডেল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন। এরপর ধীরে ধীরে বাংলা বিনোদন জগতে তাঁর বিচরণ শুরু হয়। তিনি ২০১১-২০১২ সালে ‘সবিনয়ে নিবেদন’ ধারাবাহিকে কাজ করেন। এরপর ২০১২-২০১৩ সালে ‘কেয়ার করিনা’ সিরিয়ালেও তাঁকে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে দেখা গিয়েছিল। এরপর ২০১৩-২০১৬ সাল পর্যন্ত টেলিভিশনের একটি বেসরকারি চ্যানেলে সম্প্রসারিত সিরিয়াল ‘বোঝেনা সে বোঝেনা’ য় দর্শককূলে বিপুল জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। ছটফটে ইনোসেন্ট ইনোসেন্ট পাখি যেনও সকলের হৃদয় ছুঁয়ে যায়। চোখের দৃষ্টি, মুখের অনুভূতি, হাসি সবটাই পাশের বাড়ির মেয়েটির মতনই। জনপ্রিয়তা শুধু পশ্চিমবঙ্গেই নয়, বাংলাদেশ এবং পৃথিবীর যেই যেই দেশে বাংলা সিরিয়ালটি সম্প্রসারিত হয়েছে সেখানেও। মধুমিতা ২০১৬ সালে ‘মেঘবালিকায়’ অভিনয় করেছিলেন। তাঁকে পরবর্তী সময়ে একদম আলাদা চরিত্রে দেখা যায়’ ‘কুসুমদোলা’ ধারাবাহিকে। পাখি চরিত্র যদি মধুমিতার জনপ্রিয়তার সূত্রপাত ছিল, তাহলে অবশ্যই ডঃ ইমন চ্যাটার্জি চরত্র হচ্ছে মধুমিতার অভিনেত্রী সত্ত্বার আত্মবিকাশ। এখান থেকেই তার সফরের নতুন বাঁক দেখা গিয়েছে।

এরপর ধীরে ধীরে এগিয়ে চলা।মধুমিতা নায়িকা রূপেই নয় ২০১৫, ২০১৭, ২০১৯, ২০২০ সালের মহালয়া অনুষ্ঠানে দেবী সীতা, দেবী পার্বতীর ভূমিকায় আমরা দেখেছিলাম। মধুমিতা ছোটপর্দা থেকে বড়পর্দায় পা রাখেন ২০২০ তে প্রতিম। ডি গুপ্তার হাত ধরে ‘’লভ আজ কাল পরশু’ সিনেমার মাধ্যমে। প্রথম ছবিতে অভিনেত্রী হিসেবে তিনি ছিলেন প্রতিষ্ঠিত। ভিন্ন ধারার গল্প এবং ভিন্ন রকমের চরিত্র হলেও তার অনুরাগীরা তার পারফরমেন্স দেখে হতাশ হয়নি। এরপর মৈনাক ভৌমিকের ‘চিনি’ ছবিতে চিনির ভূমিকায় অভিনয় করেন।

মধুমিতার বহু প্রতিক্ষিত ছবি ‘ট্যাংরা ব্লুউজ’ ২০২১ সালে মুক্তির অপেক্ষায়। এইছবিতে তাঁর সাথে অভিনয় করেছেন পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়।। সুপ্রিয় সেনের ছবিটি একটি মিউজিক্যাল থৃলার যা বাংলা নববর্ষে মুক্তি পাবে।
যে পাখির চোখের দিকে তাকিয়ে বহু তরুণ হৃদয়ের কম্পন অনুভব করছে। যাকে একটু ছোঁয়ার জন্য অনুরাগীরা তৃষ্ণার্ত। মৌমিতার জীবনেও প্রথম স্বীকৃত প্রেম হয়ে এসেছিলেন সহ অভিনেতা ও পরিচালক সৌরভ চক্রবর্তী। তাঁদের বিয়ে হয়েছিল এবং অনেকের চেষ্টা ব্যর্থ করে তাঁরা বিবাহবিচ্ছেদ করেন। অনেকের অনেক গুঞ্জন থাকলেও, বিবাহ বিচ্ছেদের পরবর্তী সময়ে মৌমিতার মনভাঙা হৃদয়ের সন্ধান পাওয়া গেছে। বিচ্ছেদের পরবর্তী দিন গুলিতে তাঁর দেওয়া ব্যাক্তিগত ইন্টার্ভিউতে সেই আভাসই পাওয়া গিয়েছে। কেউ পুরানো মেঘ দেখতে চায়না, আশা রাখে মেঘ ভেঙ্গে বর্ষার প্রথম বৃষ্টি নামবে; সেই ভরসাতেই মানুষের জীবন এগিয়ে চলে। শিক্ষিত, সুন্দরি, পরিশ্রমী অভিনেত্রীর জন্য টলি রিপোটারের তরফ থেকে রইল সুন্দর দীর্ঘ ও সফল জীবনের জন্য শুভকামনা। আমাদের সাথে থাকুন, আমরা এমনই টলিউদের নক্ষত্রদের আলো দিয়ে আপনার বিনোদনের সময়কে আলোকিত করবো।

Google search engine

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here